পুরুষাঙ্গ কীভাবে মোটা করবেন,কি করলে পুরুষাঙ্গ শক্ত হয়?,পুরুষাঙ্গ শক্ত ও মোটা করারঘরোয়া উপায় কি?



Subject : পুরুষাঙ্গ কীভাবে মোটা করবেন,কি করলে পুরুষাঙ্গ শক্ত হয়?,পুরুষাঙ্গ শক্ত ও মোটা করার ঘরোয়া উপায় কি?,পুরুষাঙ্গ উত্থান ত্রুটি,পুরুষাঙ্গ মোটা করার উপায়, মাত্র কয়েকদিনেই পুরুষাঙ্গ বড় ,পুরুষাঙ্গ লোহার মত শক্ত করার উপায় ,

কি করলে পুরুষাঙ্গ শক্ত হয়?বেশি সময় সহবাস করার কৌশল

কোনো ব্যায়াম বা যাদুকরি মালিশ পেনিসের আকার পরিবর্তন করতে পারেনা। সার্জারির মাধ্যমে পেনিস বড় করা যায়, কিন্তু সেটা অনেক ব্যয়বহুল ব্যাপার। আসলে তিন ইঞ্চি পরিমাণ লম্বা লিঙ্গই সুস্হ্য সেক্স লাইফের জন্য যথেষ্ঠ, যদি অন্য কোনও শারীরিক সমস্যা না থাকে। সব সময় হাসি-খুশি থাকুন, নিজের উপর আস্হা রাখুন।
আপনার পেনিস বড় না ছোট তা ধরে নেবার আগে মাপ নেয়াটা খুবি গুরুত্বপূর্ণ।

পেনিস এর গোঁড়া অর্থাৎ পেটের কাছথেকে পেনিস এর অগ্রভাগ পর্যন্ত উত্থিত অবস্থায় পেনিস এর যে মাপ, সেটাই আপনার পেনিস এর মাপ। এখন কত হলে এই পেনিস এর মাপ কে আপনি স্বাভাবিক বলবেন? আমাদের দেশের পুরুষ দের শারীরিক গঠন পশ্চিমাদের মত নয়। তাই ইন্টারনেট এ তাদের তথ্য পড়লে মন খারাপ হওয়াটাই স্বাভাবিক। আমাদের উপমহাদেরশের মানুষের শারীরিক কাঠামো অনুযায়ী উত্থিত অবস্থায় পাঁচ ইঞ্ছি থেকে ছয় ইঞ্ছি হয়ে থাকে।

আমাদের অনেকের ধারনা মনে হয় লিঙ্গ অধিক মোটা ও বড় হলে সঙ্গমে অধিক তৃপ্তি পাওয়া যায়। এটা কিন্তু একে বারে ভূল ধারনা । লিঙ্গের আকারের উপর আপনার যৌন তৃপ্তি নির্ভর করে না। এটা নির্ভর করে আপনি আপনার সঙ্গীনিকে কত সময় ধরে আনান্দ দিচ্ছেন। আপনার সঙ্গীনিকে অধিক সময় আদর করুন দেখবেন অল্প সময়ের মধ্যে সে নিস্তেজ হয়ে গেছে। মানে তার যৌনতৃপ্তি মিটে গেছে। এই জন্য লিঙ্গ শক্ত ও মোটা করার জন্য ঘরে বসেই এই প্রাকৃতিক মালিশ তৈরি করতে পারবেন। এটি তৈরি করার কিছু নিয়ম নিচে দেওয়া হলো-

(ads1)

১ তিন থেকে চার কোয়া রসুন ছুলে নিন।
২ কালো জিরার তৈল সংগ্রহ করুন।

এবার একটি পাতিলে পরিমান মত কালো জিরার তৈল নিন। এবং এর মধ্যে তিন থেকে চার কোয়া রসুন দিয়ে আস্তে আস্তে জাল দিন। কিছু সময় পরে রসুন থেকে তেল তেল বের হবে । এই অবস্থায় পাতিল চুলা থেকে নামিয়ে তেল ঠান্ডা করুন। সম্পন্ন ঠান্ডা করার পরে এটি ছোট্ট একটি বাটিতে সংগ্রহ করুন।

ব্যবহার বিধি

দিনে এক থেকে দুই বার এই তেল লিঙ্গে মালিশ করতে হবে। এবং আপনার লিঙ্গ হালকা শক্ত হলে এটি গোড়ার দিক থেকে মাথার দিকে আস্তে আস্তে মালিশ করুন। তবে এই অবস্থায় লিঙ্গ প্রচুর শক্ত হবে কিন্তু কোন কারনেই হস্তমৈথন করা যাবে না। তাহলে সম্পন্ন কাজটায় বীথা যাবে। যতটুকু উপকার পাওয়ার কথা তার থেকে বেশি ক্ষতি হবে যদি হস্তমৈথন করেন। কালো জিরার তেল এবং রসুন এটি সস্পন্ন প্রাকৃতিক উপাদান এটি ব্যবহারে কোন পার্শপ্রতিক্রিয়া নেয় এবং কালোজিরার তেলে এমন কিছু উপাদান রয়েছে যাহা আপনার লিঙ্গের নিস্তেজ রগ গুলোকে সতেজ করবে এবং অল্প দিন ব্যবহারে লিঙ্গ মোটা ও শক্ত হবে।

আর একটি কথা আপনার স্ত্রীর সঙ্গে নিয়মিত যৌনমিলন করলে আস্তে আস্তে লিঙ্গের সকল সমস্যা দূর হয়ে যাবে। এতে কোন চিন্তা করার প্রয়োজন নেয়। তবে দীর্ঘসময় সঙ্গম করার জন্য প্রোটিন জাতীয় খাদ্য খেতে হবে। তাছাড়া সকাল সন্ধা প্রানায়ম করার অভ্যাস গড়ে তুলুন এতে আপনার মিলনের সময় অবশ্যই বৃদ্ধি পাবে। তাছাড়া নিয়মিত স্ত্রী সহবাসে লিঙ্গ শক্ত ও মোটা হয়।

প্রথম ধাপঃ প্রথমে আপনি মন স্তির করুন যে আপনার পেনিস বা লিঙ্গ বড়, শক্ত ও মোটা করতে হবে। আপনি প্রতিদিন কিছু নিয়ম করে ব্যায়াম করুন। এতে আপনার শরীরে রক্তচাপ বেড়ে যাবে। প্রোটিন যুক্ত খাবার খান, সেই সাথে সেক্স নিয়ে গবেষনা বা চিন্তা করা বাদ দিন। অযথা লিঙ্গ শক্ত করাতে যাবেন না এতে অনেকের বীর্যপাত হয়ে যাবে।

(ads2)


২য় ধাপঃ সম্পূর্ণ ভাবে হস্তমৈথূন ছেড়ে দিন কারন হস্তমৈথূন করলে আপনার লিঙ্গের মাথা মোটা ও গোড়া চিকন হয়ে যাবে। ফলে আপনার লিঙ্গ স্বাভাবিক অবস্থাতে থাকবে না। আপনার লিঙ্গ লাঠি বা লোহার মত শক্ত হতে পারবে না। বিষয়টি একটু ভালো করে লক্ষ্য করুন- আপনি যখন হস্তমৈথূন করেন তখন আপনার হাতের সম্পূর্ণ শক্তি আপনার লিঙ্গের উপরে পরে যার ফলে আপনার লিঙ্গের কোষ সমূহ রক্ত চলাচল করতে বাধাগ্রস্থ হয়। আর এই কারনে সেই কোষ গুলো স্বাভাবিক শক্তি হারিয়ে ফেলে।

আপনার হাতের স্পর্শটা বেশি পড়ে আপনার পেনিসের মাথার দিকে যার ফলে শিরশির একটা ভাব অনুভুত হয়, এতে আপনার বীর্যপাত হয় কিন্তু আপনার পেনিসের গোড়ার দিকে কোন স্পর্শ পড়ে না বললেই চলে। ফলে গোড়ার দিকের কোষে কোন পান্স হয় না যার ফলে আপনার লিঙ্গ দান দিকে বা বাম দিকে বেঁকে যায়। তাই অযথা হস্তমৈথূন করা বাদ দিন, আপনার হাত আর আপনার সঙ্গীনীর যৌন এক জিনিস নয়, আকাশ আর পাতাল তফাৎ। তবে হ্যা, মাসে একবার হস্তমৈথুন তেমন কোন প্রভাব ফেলে না লিঙ্গের উপরে। আপনি চাইলে প্রতি মাসে একবার করতে পারেন।

৩য় ধাপঃ প্রথমে আপনার লিঙ্গের গোড়ার দিকে আঙ্গুল দিয়ে ধরুন এরপর ঝাঁকাতে শুরু করুন। আস্তে আস্তে ঝাঁকানোর গতি বৃদ্ধি করুন। লক্ষ্য করুন আপনার লিঙ্গ ষাঢ়ের মত দাড়িয়ে গেছে এবা থামুন। এখানে একটা বিষয় খুবই গুরুত্বপূর্ণ, আপনার প্রচুর প্ররিমানে বীর্যপাত করতে ইচ্ছা জাগবে কিন্তু আপনি বীর্যপাত করবেন না। অনেকেই ভাবে, “যা হয় হবে আগে বীর্যপাত কররি” এতে আপনার বিশাল ক্ষতি। আপনি আসছিলেন লিঙ্গ বড়, শক্ত ও মোটা করতে কিন্তু আপনি বীর্যপাত করে সবশেষ করে দিলেন। এমন টা করলে আপনার কোন উপকার হবে না। সাময়িক কষ্ট করুন আপনি ভালো ফল পাবেন। আপনি প্রতিদিন ২৫০ থেকে ৩০০ বার লিঙ্গ ঝাঁকাতে থাকুন। এতে আপনার লিঙ্গে প্রচুর রক্তচাপ বাড়বে যার ফলে আপনার লিঙ্গের কোষগুলো স্বাভাবিক থাকবে।

৪র্থ ধাপঃ ২০ থেকে ৩০ মিনি পরে লিঙ্গ থেকে ছাঁড়িয়ে ফেলুন। এবং লিঙ্গটি টিস্যু দিয়ে মুছে ফেলুন কিন্তু ধুবেন না। আপনার লিঙ্গের ত্বক একটু জড়িয়ে যাবে। এখন একটু লিঙ্গ ঞালকা ভাবে ঝাঁকানো শুরু করুন, এক মিনিট করে থামুন। বীর্যপাত কোন ভাবেইযেন না হয়, বীর্যপাত করলে সবশেষ।

৫ম ধাপঃ দেশী খাটি মুধু কিনে রাখুন এবং দৈনিক রাত্রে ঘুমানোর পূর্বে ২০ থেকে ৩০ ফোটা মধু হাতের তালুতে নিয়ে লিঙ্গে মালিশ করুন। আপনার শিরশির ভাব হবে লিঙ্গে এবং অনেক গরম হয়ে যাবে। বীর্যপাতের কাছাকছি চলে আসুন এবং লিঙ্গ ছেড়ে দিন। দেখুন আপনার লিঙ্গ আপনা-আপনি ঝাকাঁচ্ছে এবং রক্তচাপ বাড়ছে। যদি আপনা-আপনি বীর্যপাত হয়ে যায় তাহলে কিছু করার নেই কিন্তু বীর্যপাতের সময় আপনার লিঙ্গে হাত দিবেন না। যতটুকু বেড় হবার তা এমনিতেই বেড়িয়ে যাবে। তবে সর্বদা চেষ্টা করুন বীর্যপাত না করার এতে মধু আপনার লিঙ্গে খবি ভালো ভাবে কাজ করবে। আপনার লিঙ্গের কোষ গুলো ১০ থেকে ১৫ দিনে মধ্যে সতেজ ও স্বাভাবিক হয়ে যাবে। উপরোক্ত বিষয় গুলো অনেকে লক্ষ্য করে অনেক ভালো ফল পেয়েছে।

(ads2)


তাই আপনি নিয়মিত ১ম ধাপ থেকে ৫ম ধাপ পর্যন্ত লক্ষ্য করুন এবং তা কাজে লাগান। খুব অল্প সময়ে দেখবেন আপনার পেনিস বা লিঙ্গ লৌহের মত শক্ত ও মোটা হয়ে যাবে। মনে রাখবেন, আপনার লিঙ্গ যতটা সুস্থ্য হবে আপনি সেক্স করে তার থেকেও তৃপ্তি পাবেন। অকাল বীর্যপাত বন্ধ করুন, যেখানে সেখানে লিঙ্গ দাড়করাবেন না। কি করলে পেনিস শক্ত হয়, পেনিস শক্ত করার উপায় সমূহ

You Can Email Us Questions & Comments: info@healthcitylife.com


Post a Comment

Previous Post Next Post

POST ADS1

POST ADS 2