যে ১০টি লক্ষণ দেখা দিলে বুঝবেন আপনার কিডনী রোগ হয়েছে, আপনার কিডনী রোগ আছে কিনা যে লক্ষণ গুলো দেখে বুঝবেন, কিডনি রোগের প্রাকৃতিক চিকিৎসা

 

মানুষের শরীরে শারীরিক বিপাকের ফলে যে বর্জ্য তৈরি হয়, তা শরীর থেকে বের করে দেওয়ার জন্য ছাঁকনি হিসেবে কাজ করে কিডনি। যখন শারীরিক বিভিন্ন সমস্যা যেমন- উচ্চ রক্তচাপ বা ডায়াবেটিসের কারণে কিডনি ঠিকমতো কাজ করে না তখন শরীরে টক্সিন জমা হয়। কিডনি ড্যামেজের লক্ষণগুলো এত সূক্ক্ষ্ম যে প্রাথমিকভাবে তা বোঝাই যায় না। কিডনি ড্যামেজকে বলা হয় ‘নীরব ঘাতক'।


পা ও গোড়ালি ফোলা


কিডনি শরীর থেকে বর্জ্য এবং অতিরিক্ত সোডিয়াম ফিল্টার করতে সাহায্য করে। যখন কিডনি তার কাজ ঠিকভাবে করতে পারে না তখন শরীর সোডিয়াম ধরে রাখতে শুরু করে। এতে করে পায়ের গোড়ালি ফুলে যায়। এ ছাড়া চোখের ও মুখের অন্যান্য অংশে ফোলাভাব দেখা দেয়।


দুর্বলতা এবং ক্লান্তি


ক্লান্ত বা দুর্বল বোধ করা সাধারণত লিভার সমস্যার প্রাথমিক লক্ষণ। কিডনির ব্যাধি গুরুতর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ব্যক্তি আরো বেশি দুর্বল এবং ক্লান্ত বোধ করতে শুরু করে। এমনকি ঘরের কাজ করা বা হাঁটাহাঁটি করা তার জন্য কষ্টের মনে হতে পারে। রক্তে টক্সিন জমা হওয়ার কারণে এ সমস্যা হয়।


ক্ষুধামান্দ্য


শরীরে বিষাক্ত পদার্থ এবং বর্জ্য জমা হওয়ার ফলে ক্ষুধা কমে যেতে পারে, অবশেষে ওজন কমতে পারে। ক্ষুধা কম হওয়ার আরেকটি কারণ হতে পারে বমি বমি ভাব এবং বমি হওয়া। সব সময় পেট ভরা ভাব থাকবে আর খাওয়ার প্রতি কোনো আগ্রহ থাকবে না।


প্রসাবে পরিবর্তন


একজন স্বাভাবিক সুস্থ মানুষ দিনে ৬ থেকে ১০ বার প্রস্রাব করে। এর চেয়ে বেশি কিডনির ক্ষতির ইঙ্গিত হতে পারে। কিডনির সমস্যার ক্ষেত্রে, একজন ব্যক্তি হয় খুব কম বা খুব ঘন ঘন প্রসাব করতে থাকে। দুটি অবস্থায় কিডনির ক্ষতি করে। কিডনি নষ্ট হতে শুরু করলে প্রস্রাবের সঙ্গে রক্ত বের হয়ে যেতে শুরু করে।


শুষ্ক ত্বক ও চুলকানির সমস্যা


কিডনি ক্ষতির অন্য লক্ষণগুলোর মধ্যে আছে শুষ্ক ত্বক ও চুলকানির সমস্যা। যখন শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের হতে পারে না তখন এই সমস্যা দেখা দেয়। রক্তে টক্সিন জমা হতে হতে চুলকানি, শুষ্কতা এবং দুর্গন্ধ সৃষ্টি হয়। কিডনি সমস্যা থেকে হতে পারে হাড়ের রোগ।


মোটকথা হলো- প্রাথমিক পর্যায়ে ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে কিডনি রোগ প্রতিরোধ করা যেতে পারে, যা শুধু সময়মতো উপসর্গ নির্ণয় করা গেলেই সম্ভব। যারা উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস এবং কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধির সমস্যায় ভুগছেন তাদের কিডনি রোগ হওয়ার ঝুঁকি বেশি। এই ব্যক্তিদের কিছুদিন পর পর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা উচিত। মেডিক্যাল চেক-আপ প্রাথমিক পর্যায়ে সমস্যা শনাক্ত করতে পারে, সেই সঙ্গে দ্রুত চিকিৎসা শুরু করতে সাহায্য করে।


মানবদেহে সাধারণত এক জোড়া কিডনি থাকে। বড় কলাই আকৃতির কিডনি দুটি দৈর্ঘ্যে ৯-১২ সেন্টিমিটার; প্রস্থে ৫-৬ সেন্টিমিটার ও ৩-৪ সেন্টিমিটার মোটা হয়। মেরুদণ্ডের দুই পাশে কোমরের একটু উপরে এদের অবস্থান।


এ ব্যাপারে প্রখ্যাত কিডনি বিশেষজ্ঞ ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রোভিসি অধ্যাপক ডা. মুহাম্মদ রফিকুল আলম বলেন, প্রাথমিক অবস্থায় বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দীর্ঘমেয়াদি কিডনি রোগের কোনো লক্ষণ দেখা যায় না। লক্ষণ যখন দেখা যায়, তখন কিডনি শতকরা ৭০ ভাগ কর্মক্ষমতা হারিয়ে ফেলে।


তিনি বলেন, দুটি সহজ পরীক্ষায় কিডনি রোগ নির্ণয় করা যায়। ১. মূত্র পরীক্ষায় আমিষের উপস্থিতি দেখা ও ২. রক্ত পরীক্ষায় ক্রিয়োটিনিনের মাত্রা দেখা।


দীর্ঘমেয়াদি কিডনি রোগের কিছু লক্ষণ হলো, শরীর ফুলে যাওয়া, ক্লান্তিবোধ করা, মনোযোগহীনতা, ক্ষুধামান্দ্য ও ফেনাযুক্ত প্রস্রাব হওয়া।


কিডনির বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক যিনি কিডনির মেডিসিন বিষয়ক চিকিৎসা দিয়ে থাকেন, তাকে আমরা নেফ্রোলজিস্ট বলি। আর কিডনির বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক যিনি কিডনির সার্জিক্যাল রোগের চিকিৎসা দিয়ে থাকেন, তাকে বলি ইউরোলজিস্ট।


কাদের সতর্ক হতে হবে


১. আপনার যদি ডায়াবেটিস থাকে, চিকিৎসকের পরামর্শ নিন


২. উচ্চ রক্তচাপ


৩. স্থূলতা


৪. ধূমপানের অভ্যাস


৫. অধিক বয়স (৫০ বা তদূর্ধ্ব)


৬. পরিবারে কারো কিডনি রোগ, ডায়াবেটিস বা উচ্চ রক্তচাপ থাকলে সতর্ক হতে হবে।


সুরক্ষায় মেনে চলুন ৮ নিয়ম


১. নিজেকে সবল ও কর্মব্যস্ত রাখুন


২. রক্তের শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করুন


৩. রক্তচাপ পর্যবেক্ষণ করুন


৪. সুষম খাদ্য খান এবং ওজন নিয়ন্ত্রণ রাখুন


৫. পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করুন


৬. ধূমপান পরিহার করুন


৭. চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবন থেকে বিরত থাকুন


৮. আপনি যদি কিডনি ঝুঁকিতে থাকেন, তাহলে এক বা একাধিক কিডনি রোগ পরীক্ষার মাধ্যমে শনাক্ত করুন


কে আক্রান্ত হবেন?


১. পৃথিবীতে শতকরা ১০ জন মানুষ কিডনি রোগে ভুগছেন


২. কিডনি রোগ সকল বয়সের এবং সকল জাতিকে আক্রান্ত করতে পারে


৩. ৭৫ বৎসর বয়সের ৫০ শতাংশ মানুষ কমবেশি দীর্ঘমেয়াদি কিডনি জটিলতায় ভোগেন


৪. ৬৫-৭৫ বয়সের প্রতি ৫ জনে একজন পুরুষ এবং প্রতি ৪ জনে একজন নারী কিডনি রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি


৫. উচ্চ রক্তচাপ এবং বহুমূত্র রোগ দীর্ঘমেয়াদি কিডনি রোগের প্রধান কারণ


আপনি কি ঝুঁকিতে আছেন? তাহলে দেখুন, আপনার কি উচ্চ রক্তচাপ আছে? আপনি কি বহুমূত্র রোগে ভুগছেন? আপনার পরিবারের কারও কি কিডনি রোগ আছে? আপনার দৈহিক ওজন কি বেশি? আপনার কি জাতিগতভাবে আফ্রিকান, হিসপানিক বা এশিয়ান বংশধর?


আপনার উত্তর এক বা একাধিক হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। কিডনি রোগ একটি নীরব ঘাতক, যা আপনার সুস্থ জীবন-যাপন বাধাগ্রস্ত করে। এখানে কিছু সহজ উপায় বলা আছে যা আপনাকে কিডনি রোগ থেকে রক্ষা করবে।


কিডনি রোগ প্রতিরোধে করণীয়


কিডনি রোগ একটি নীরব ঘাতক। বাংলাদেশে প্রায় ২ কোটি লোক কোনো না কোনো কিডনি রোগে আক্রান্ত। কিডনি বিকল হয়ে প্রতি ঘণ্টায় পাঁচজনের মৃত্যু হচ্ছে। কিডনি বিকল রোগীর চিকিৎসা এত ব্যয়বহুল যে, এ দেশে শতকরা ৫ ভাগ লোকেরও দীর্ঘ মেয়াদি চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়ার সামর্থ্য নেই। সাধারণত ৭০ ভাগ কিডনি নষ্ট হওয়ার আগে রোগীরা বুঝতেই পারে না যে সে ঘাতক ব্যাধিত আক্রান্ত। এই ঘাতক ব্যাধি থেকে বাঁচার একমাত্র উপায় অঙ্কুরেই কিডনি রোগ নির্ণয় ও কিডনি বিকল প্রতিরোধ করা।


কিডনি বিকল প্রতিরোধের ১০টি উপায়


১. ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ ও নেফ্রাইটিস কিডনি বিকলের প্রধান কারণ


২. ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীদের রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রণ রাখা (HBAIC ৭ (সাত) এর নিচে)


৩. উচ্চ রক্তচাপ আক্রান্ত রোগীদের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে (১৩০/৮০এর নিচে)।


৪. ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ আক্রান্ত রোগীদের কিডনির কার্যকারিতা ও প্রস্রাবে মাইক্রো অ্যালবুমিন প্রতি ৬ মাস অন্তর পরীক্ষা করা


৫. শিশুদের গলাব্যথা, জ্বর ও ত্বকে খোসপাঁচড়ার দ্রুত সঠিক চিকিৎসা করা উচিত


৬. ডায়রিয়া, বমি ও রক্ত আমাশয়ের কারণে রক্ত, পানি ও লবণ শূন্য হয়ে


কিডনি বিকল হতে পারে। তাই দ্রুত খাবার স্যালাইন খেতে হবে। প্রয়োজনে শিরায় স্যালাইন দিতে হবে


৭. ধূমপান বর্জন করুন, ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুন ও নিয়মিত ব্যায়াম করুন


৮. চিকিৎসকের পরামর্শ ব্যতীত এন্টিবায়োটিক ও তীব্র ব্যথার ওষুধ সেবন না করা


৯. প্রস্রাবের ঘন ঘন ইনফেকশনের জন্য প্রয়োজনীয় চিকিৎসা নিতে হবে


১০. পাঁচ রঙের সবজি খাবেন, বেশি করে ফল খাবেন, চর্বি জাতীয় খাবার ও লবণ কম খাবেন ও পরিমিত পানি পান করবেন।

Post a Comment

Previous Post Next Post

POST ADS1

POST ADS 2