কন**ডম ব্যবহারের নিয়ম ভুল দিক গুলো

 

কনডম ব্যবহারের নিয়ম ভুল দিক গুলো

কনডম ব্যবহারের নিয়ম ভুল দিক গুলো


অনাকাঙ্ক্ষিত গর্ভধারণ এবং যৌন সংক্রামক রোগ প্রতিরোধ করার সবচেয়ে ভালো উপায় হল কনডম ব্যবহার করা। এটি ল্যাটেক্স রাবার অথবা প্লাস্টিক ( পলিইউরিন) দিয়ে তৈরি জন্মনিয়ন্ত্রক।



যখন কনডম কিনবেন তখন খেয়াল রাখবেন যেন সেটাতে “British Standards Institution (BSI) kitemark” অথবা ”European CE ” প্রতীক থাক ‍ৃ মান যাচাইয়ের জন্য এবং কেনার সময় অবশ্যই মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখ দেখে কিনুন।


দুই ধরনের কনডম রয়েছে: ১। নারীর ও ২। পুরুষের। তবে নারীদের কনডম বাংলাদেশে পাওয়া যায়না।


পুরুষদের কনডম: মিলনের সময় কনডম পুরুষ লিঙ্গে পরা হয় যেন বীর্য সঙ্গীর যোনীতে প্রবেশ করতে না পারে। কনডমটি পরতে হবে যখন পুরুষ লিঙ্গ উত্তেজিত থাকবে এবং সঙ্গীর দেহে প্রবেশ করার পুর্বে।


ব্যবহার পদ্ধতি: সাবধানে প্যাকেটটি খুলুন যেটার মাঝে কনডম টি আছে, খেয়াল রাখুন যেন তা ছিড়ে না যায়।

কনডম এর টিপ / উপরের ভাগ টি আপনার বুড়ো আঙ্গুল এবং তর্জনী দিয়ে ধরুন যেন ঠিক ভাবে প্রবেশ করে এবং কোন বাতাস যেন ভিতরে না থাকে। বাতাস থাকলে ছিড়ে যাবার সম্ভাবনা থাকে।


কনডম আস্তে আস্তে পুরুষ লিঙ্গের পুরা দৈর্ঘ্য জুড়ে পরুন । কনডম টি যদি না খুলে তবে বুঝতে হবে আপনি উলটো দিকে পরছেন । তখন আবার নতুন কনডম ব্যবহার করুন ।


খেয়াল রাখুন কন্ডম যেন ঠিক জায়গায় থাকে এবং মিলনের সময় খুলে আসলে আরেকটি নতুন কনডম ব্যবহার করুন।

বীর্যপাতের সময় পুরুষ লিঙ্গ যখন উত্তেজিত অবস্থায় থাকবে তখন কনডমকে ঠিক জায়গায় ধরে রেখে সম্পুর্ন লিঙ্গ সঙ্গীর যোনী থেকে বের করে আনুন। আপনি তখনি কনডম বের করে আনবেন যখন আপনার লিঙ্গের সাথে সঙ্গীর দেহের কোন স্পর্শ না থাকে। কনডমটিকে টিস্যুতে করে ডাস্টবিনে ফেলুন। কমডে ফ্লাশ করবেন না তাতে সেটির পথ বন্ধ হয়ে যেতে পারে।


নারীদের কনডম: এ ক্ষেত্রে নারীরা নিজেদের জন্মনিয়ন্ত্রন পদ্ধতি নিজেরাই পছন্দ করতে পারে। এটি অবশ্য পুরুষ লিঙ্গ যোনী স্পর্শ করার পুর্বেই পরতে হবে।


ব্যবহার পদ্ধতি: সাবধানে প্যাকেটটি খুলুন যেটার মাঝে কনডমটি আছে, খেয়াল রাখুন যেন তা ছিড়ে না যায়। বন্ধ দিকটি নিজের তর্জনী বা বুড়ো আঙ্গুলের মাঝে ধরুন । যেখানে একটি পাতলা রিং আছে আরেক হাত দিয়ে যোনী উন্মুক্ত করুন ।

তারপর রিং টি যোণীতে প্রবেশ করান এবং মধ্য আঙ্গুল দিয়ে রিং এর মাঝে অংশ যোনির যতটুকু ভিতরে সম্ভব ততটুকু ভিতরে প্রবেশ করান । পাতলা রিংটি যোনীর জতটুকু বাইরের দিকে সম্ভব সেখানে রাখুন । খেয়াল রাখুন পুরুষ লিঙ্গ যেন যোনী এবং কনডমের মাঝ দিয়ে চলে যায়।


মিলেনের পর কনডমের শেষ অংশ ধরে কন্ডম বের করে আনুন । খেয়াল রাখুন কনডম যেন ছিড়ে না যায়। তাতে বীর্য দেহে প্রবেশ করতে পারে । এমন হলে ডাক্তারের পরামর্শে ইমার্জেন্সি পিল সেবন করুন।

লুব্রিকেন্ট


আপনি যদি এটি ব্যবহার করে থাকেন তবে পানি জাতীয় ব্যবহার করুন । কারন তেল জাতীয় যেমন – লোশন ব্যবহারে কনডম ছিড়ে যেতে পারে।কনডম মিলনের সময় ছিড়ে গেলে আপনার ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ইমার্জেন্সি পিল সেবন করুন । এছাড়া অন্যান্য জন্মনিয়ন্ত্রক পদ্ধতি ও ব্যবহার করতে পারেন ।

Post a Comment

Previous Post Next Post

POST ADS1

POST ADS 2