Cosium এর কাজ কি, ঘুম ও মানসিক চিন্তা দূর করার সবচেয়ে ভালো টেবলেট / Cosium, কোসিয়াম ট্যাবলেট , ভালো ঘুমের জন্য কোসিয়াম এবং মানসিক চাপ দূর ও মাথা ঠান্ডা

 

বিষয়: কোসিয়াম ৫ টা এক সাথে খেলে ঘুম কেমন হবে? কত ঘনটা গভীর ঘুম হবে?,Cosium ঘুমের মহা ওষুধ, কোসিয়াম এর ভালো ও খারাপ দিক ,কোসিয়াম কখন?, কোসিয়াম কেন?, কোসিয়াম কিভাবে খাবেন?, Cosium Tab ডিপ্রেশন দূর করা, কোসিয়াম ঘুমের ঔষধ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা

Cosium Tablet

ক্লোবাজাম

10 mg

একমি ল্যাবরেটরিজ লিমিটেড

Unit Price: ৳ 3.52 (100's pack: ৳ 352.00)

নির্দেশনা

তীব্র ও দীর্ঘস্থায়ী উদ্বিগ্ন অবস্থায় বিশেষ করে নিন্মোক্ত উপসর্গগুলোর ক্ষেত্রেঃ উদ্বিগ্নতা, দুশ্চিন্তা, অস্থিরতা, উত্তেজনা, বিরক্ত, আবেগময় অনিদ্রা, মনোদৈহিক ব্যাধি (হৃৎপিন্ড/ রক্তসংবহনতন্ত্র ও পরিপাকতন্ত্র সংক্রান্ত), আবেগঘটিত সমস্যায়।

বিষন্ন বা উদ্বিগ্ন রোগীদের চিকিৎসায়, ক্লোবাজাম অবশ্যই পর্যাপ্ত সহগামী চিকিৎসার সাথে ব্যবহার করতে হবে। শুধু বেনজোডায়াজাপিন ব্যবহার করলে রোগীদের মধ্যে আত্মহত্যার প্রবনতা দেখা দিতে পারে।

মানসিক উদ্বেগ ও অস্থিরতায় আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার পূর্বে রোগী অবসাদগ্রস্থ আছে কি না তা নিশ্চিত হয়ে প্রয়োজনানুসারে সহগামী বা ভিন্ন চিকিৎসা প্রদান করতে হবে। সিজোফ্রেনিয়া অথবা অন্যান্য মানসিক রোগাক্রান্ত রোগীদের ক্ষেত্রে বেনজোডায়াজাপিন শুধুমাত্র সহগামী চিকিৎসা হিসাবে ব্যবহার করার জন্য পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে, উদাহরণস্বরূপ- প্রাথমিক চিকিৎসা হিসাবে নয়।

মৃগী রোগীদের ক্ষেত্রে সহগামী চিকিৎসাস্বরূপ এটি ব্যবহার করা যাবে শুধুমাত্র যাদের খিঁচুনি রোধক বা এন্টিকনভালসেন্টের একক চিকিৎসায় পর্যাপ্ত ফলাফল পাওয়া যায় না।

ঔষধের মাত্রা

সাধারণ মাত্রা: ঔষধের মাত্রা ও চিকিৎসার সময়কাল, নির্দেশনা, রোগের উপসর্গের তীব্রতা এবং ঔষধে রোগীর প্রতিক্রিয়ার উপর ভিত্তি করে নির্ধারণ করা হয়। চিকিৎসা চলাকালীন রোগীর মানসিক সতর্কতাবস্থা ও স্নায়ুবিক প্রতিক্রিয়ার সময়ের উপর সম্ভাব্য প্রতিবন্ধকতা সম্পর্কে বিশেষ গুরুত্ব প্রদান করতে হবে। এক্ষেত্রে মূল বিষয় হলো ঔষধের মাত্রা যতটা সম্ভব কম রাখা।

উদ্বিগ্ন অবস্থার চিকিৎসায়:
প্রাপ্তবয়স্ক এবং ১৫ বছরের উপরের কিশোর-কিশোরীদের ক্ষেত্রেঃ ক্লোবাজাম এর প্রাথমিক মাত্রা দৈনিক ২০ মিঃগ্রাঃ। প্রয়োজনে প্রাথমিক মাত্রা বৃদ্ধি করা যেতে পারে। সাধারণত পরামর্শ দেওয়া হয়ে থাকে যেন দৈনিক মাত্রা ৩০ মিঃগ্রাঃ এর উপরে না যায়।

বয়স্ক রোগীদের ক্ষেত্রেঃ ঔষধের অধিকতর প্রভাব এবং বিরূপ প্রতিক্রিয়ার প্রতি অধিক সংবেদনশীলতার কারণে ঔষধের প্রারম্ভিক মাত্রা কম রেখে ধীরে ধীরে সতর্কতার সাথে পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে মাত্রা বৃদ্ধি করা যেতে পারে। নিয়ন্ত্রিত মাত্রা হিসাবে দৈনিক ১০-১৫ মিঃগ্রাঃ-ই যথেষ্ট।

৩ থেকে ১৫ বছরের শিশুদের ক্ষেত্রেঃ ঔষধের অধিকতর প্রভাব এবং বিরূপ প্রতিক্রিয়ার প্রতি অধিক সংবেদনশীলতার কারণে ঔষধের প্রারম্ভিক মাত্রা কম রেখে ধীরে ধীরে সতর্কতার সাথে পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে মাত্রা বৃদ্ধি করা যেতে পারে। এক্ষেত্রে ক্লোবাজামের মাত্রা দৈনিক ৫-১০ মিঃগ্রাঃ-ই যথেষ্ট। শিশুদের ব্যবহারের জন্য সতর্কতার সাথে নিরাপত্তার মূল্যায়ন ছাড়া বেনজোডায়াজাপিন ব্যবহার করা যাবে না।

মাত্রার মাধ্যমিক সমন্বয়করনঃ উপসর্গের উন্নতি হলে, ঔষধের মাত্রা কমাতে হবে।

ঔষধ প্রদানের সময়ঃ যদি ঔষধের মাত্রাটি সারাদিনে বিভিন্ন ভাগে গ্রহন করতে হয়, তাহলে সবচাইতে বেশী পরিমাণটি সন্ধ্যায় গ্রহন করতে হবে।

চিকিৎসার সময়সীমাঃ চিকিৎসা যথা সম্ভব সংক্ষিপ্ত হতে হবে। নিয়মিত একটা নির্দিষ্ট সময় পর সর্বোচ্চ চার সপ্তাহের ব্যবধানে, রোগীকে অবশ্যই পুনঃমূল্যায়ন করতে হবে। বিশেষ করে রোগী যখন সম্পূর্ণভাবে উপসর্গ মুক্ত হবে তখন চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয়তা পুনঃমূল্যায়ন করতে হবে। সম্পূর্ণ চিকিৎসার (উদাহরণস্বরূপ- ধীরে ধীরে কমিয়ে দেওয়ার প্রক্রিয়া সহ) সময়সীমা আট থেকে বার সপ্তাহের বেশী হওয়া যাবে না। কিছু ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ সময়সীমার চেয়ে বেশী সময় ধরেও চিকিৎসা দরকার হতে পারে; রোগীর অবস্থার উপর ভিত্তি করে বিশেষজ্ঞের দ্বারা পুনরায় মূল্যায়ন ছাড়া চিকিৎসার সময়সীমা বৃদ্ধি করা যাবে না। দীর্ঘ সময়ব্যাপী চিকিৎসা চালানোর ক্ষেত্রে একটানা ঔষধ গ্রহন থেকে বিরত থাকতে হবে কারন এর ফলে ঔষধের প্রতি নির্ভরতা তৈরি হতে পারে।

চিকিৎসা বন্ধকরনেঃ দীর্ঘদিন ধরে ক্লোবাজাম ব্যবহারের কালে হঠাৎ করে ঔষধ বন্ধ করা যাবে না।এক্ষেত্রে রোগীকে মেডিক্যাল পর্যবেক্ষণে রেখে ঔষধের মাত্রা ধীরে ধীরে কমাতে হবে অন্যথায় ঔষধ প্রত্যাহারের উপসর্গ দেখা দেবে।

একটি অথবা একের অধিক খিঁচুনি রোধক সহযোগে মৃগীরোগের চিকিৎসায়:

প্রাপ্ত বয়স্ক এবং ১৫ বছরের উপরের কিশোর কিশোরীদের ক্ষেত্রেঃ ঔষধের প্রাথমিক মাত্রা অল্প থেকে শুরু করে (৫-১৫ মিঃগ্রাঃ দৈনিক) প্রয়োজনানুসারে ধীরে ধীরে সর্বোচ্চ ৮০ মিঃগ্রা পর্যন্ত বৃদ্ধি করা যাবে।

৩ থেকে ১৫ বছরের শিশুদের ক্ষেত্রেঃ ৫ মিঃগ্রাঃ মাত্রার ঔষধ দ্বারা চিকিৎসা শুরু করার জন্য পরামর্শ প্রদান করা হয়ে থাকে। নিয়ন্ত্রিত মাত্রা হিসাবে দেহের ওজন অনুযায়ী প্রতি কেজিতে দৈনিক ০.৩ থেকে ১.০ মিঃগ্রাঃ ক্লোবাজামই সাধারনত যথেষ্ট। বিরূপ প্রভাবগুলোর প্রতি উচ্চ সংবেদনশীলতা শিশুদের মধ্যে উপস্থিত থাকতে পারে এবং সর্তকতার সাথে ক্রমন্বয় ডোজের মাত্রা বৃদ্ধির প্রয়োজন হতে পারে; বেনজোডিয়াজেপাইন ব্যবহারের জন্য সর্তকতা অবলম্বন না করে শিশুদের দেয়া উচিত নয়। উচ্চ সংবেদনশীলতা থেকে পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া প্রতিলক্ষিত হয়, তাই নিম্ন প্রাথমিক মাত্রা দিয়ে চিকিৎসা শুরু করতে হবে এবং পর্যবেক্ষণের সাথে ধীরে ধীরে মাত্রা বৃদ্ধি করতে হবে। শিশুদের ক্ষেত্রে সাবধানতার মূল্যায়ন ছাড়া বেনজোডায়াজাপিন ব্যবহার করা যাবে না।

(ads2)


বৃদ্ধ রোগীদের ক্ষেত্রেঃ পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার প্রতি উচ্চ সংবেদনশীলতা এই ধরনের রোগীদের মধ্যে বেশি দেখা যায় বিধায় নিম্ন মাত্রা দিয়ে চিকিৎসা শুরু করতে হবে এবং পর্যবেক্ষণের সাথে ধীরে ধীরে মাত্রা বৃদ্ধি করতে হবে।

ডোজিং এর সময় ডোজটি যদি সারাদিন ধরে বিভক্ত থাকে, তবে সন্ধ্যায় বৃহত্তর অংশ নেয়া উচিত। ৩০ মিলি গ্রাম ক্লোবাজামের মাত্রা সন্ধ্যায় একক ডোজ হিসেবেও নেয়া যেতে পারে।

চিকিৎসার সময়সীমাঃ একটা নির্দিষ্ট সময় পর নিয়মিত সর্বোচ্চ চার সপ্তাহের ব্যবধানে, রোগীকে অবশ্যই পুনরায় পরীক্ষা করতে হবে, তারপর চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয়তা মূল্যায়ন করতে হবে।

চিকিৎসা বন্ধকরনেঃ অনেক দিন যাবৎ ক্লোবাজাম ব্যবহারের পরে হঠাৎ ঔষধ বন্ধ করা যাবে না। এক্ষেত্রে মেডিকেল পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে ঔষধের মাত্রা ধীরে ধীরে কমাতে হবে অন্যথায় খিঁচুনি হওয়ার ঝুঁকি বৃদ্ধি পায় এবং ঔষধ প্রত্যাহারের অন্যান্য উপসর্গগুলো দেখা দিতে পারে।


More Article:-

(ads1) (ads2)

সেবনবিধি

ট্যাবলেটটি পুরোটা একবারে বা চূর্ণ করে এবং আপেল রসের সাথে মিশিয়ে প্রয়োগ করা যাবে। ১০ মিঃগ্রাঃ ট্যাবলেট ৫ মিঃগ্রাঃ এ সমান ভাবে অর্ধবৃত্ত আকারে বিভক্ত করা যাবে। ক্লোবাজাম খাদ্যের সঙ্গে বা ছাড়া দেওয়া যেতে পারে।

ঔষধের মিথষ্ক্রিয়া

অ্যালকোহল: অ্যালকোহল ও ক্লোবাজাম একত্রে গ্রহন করলে, রক্তে ক্লোবাজাম এর পরিমান (বায়োএভেলেবিলিটি) ৫০% বৃদ্ধি পায়, এরকারনে ক্লোবাজাম এর প্রভাবও বৃদ্ধি পায়।

কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্র অবসাদকারী ঔষধ: যদি অন্য কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্র অবদমনকারী ঔষধ বা অ্যালকোহল এর সাথে উচ্চ মাত্রায় ক্লোবাজাম প্রয়োগ করা হয় তাহলে তা পরস্পরের কার্যকারিতা বৃদ্ধি করে। যেমন-অ্যান্টিসাইকোটিক, আঞ্জিওলাইটিক, কিছু অ্যান্টিডিপ্রেসাল্ট, অ্যান্টিকনভালসাল্ট ঔষধ, সিডেটিভ অ্যান্টিহিষ্টামিন, অ্যানেসথেটিক, হিপনোটিক বা নারকোটিক অ্যানলজেসিক রা অন্যান্য সিডেটিভ। যদি এসকল পদার্থ বা লিথিয়াম দ্বারা রোগী নেশাগ্রস্ত হয়ে থাকে, তাহলে ক্লোবজাম প্রয়োগে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

অপিয়েডস: সিএনএস উপশমকারী প্রভাব এর কারণে বেনজডায়াজিপাইনস এর সাথে ক্লোবাজাম এবং অপিয়েডস এর সহগামী ব্যবহারে অনুত্তেজিত, শ্বাসযন্ত্রের হতাশা, কোমা ও মৃত্যুর ঝুঁকি বেড়ে যায়। অপিয়েডস এবং বেনজডায়াজিপাইনস এর ডোজের সীমা এবং সময়কাল সীমিত করতে হবে।

এন্টিকনভালসেন্ট: মৃগী রোগের চিকিৎসায় যদি ক্লোবাজাম এন্টিকনভালসেন্টের সাথে একত্রে ব্যবহার করা হয় তাহলে নিয়মিত মেডিক্যাল পর্যবেক্ষণের (EEG monitoring) মাধ্যমে ঔষধের মাত্রার সমন্বয় করতে হবে, নতুবা এটি এন্টিকনভালসেন্টের সাথে পারস্পারিক ক্রিয়া করবে। রোগীর যদি একই সময়ে ভ্যালপ্রোয়িক এসিড দ্বারা চিকিৎসা করা হয় তাহলে ভ্যালপ্রোয়িক এসিডের প্লাজমা ঘনত্ব অল্প থেকে মাঝারি মাত্রায় বৃদ্ধি পায়। ক্লোবাজাম ও ফিনায়টোইন দ্বারা একত্রে চিকিৎসা চালালে, ফিনায়টোইনের প্লাজমা ঘনত্ব বৃদ্ধিপায়। ভ্যালপ্রোয়িক এসিড অথবা ফিনায়টোইন ক্লোবাজাম এর সাথে সহগামী চিকিৎসা হিসাবে ব্যবহার করলে ভ্যালপ্রোয়িক এসিড অথবা ফিনায়টোইনের প্লাজমা ঘনত্ব পর্যবেক্ষণ করতে হবে। কারবামাজেপিন এবং ফিনায়টোইন, ক্লোবাজাম থেকে এর সক্রিয় মেটাবোলাইট এন-ডেস্মিথাইল ক্লোবাজাম রূপান্তর করনের মাত্রা বৃদ্ধির করে। স্টিরিপেন্টল CYP3A এবং CYP2C19 বাধাদানের মাধ্যমে, ক্লোবাজাম এবং এর সক্রিয় মেটাবোলাইট এন-ডেস্মিথাইল ক্লোবাজামের প্লাজমা ঘনত্ব বৃদ্ধি করে। এজন্য এর প্লাজমা ঘনত্ব পর্যবেক্ষণ করতে হবে। এজন্য স্ট্রাইপেনল শুরুর পরে এবং স্থিতিশীল মাত্রায় পৌঁছানোর পর (প্রায় ২ সপ্তাহ পর) প্লাজমা ঘনত্ব পর্যবেক্ষণ করতে হবে।

নারকোটিক অ্যানালজেসিক: ক্লোবাজাম এর সাথে সহগামী চিকিৎসা হিসাবে নারকোটিক অ্যানালজেসিক ঔষধের ব্যবহারে ইউফোরিয়া বা ভাল লাগার অনুভূতি বৃদ্ধি পায়, যার কারণে মানসিক নির্ভরতা বৃদ্ধি পেতে পারে।

পেশী শিথিলকারক: পেশী শিথিলকারক এবং নাইট্রাস অক্সাইডের প্রভাব বৃদ্ধি পেতে পারে।

CYP2C19 বাধাদানকারী: তীব্র এবং মাঝারি ধরনের CYP2C19 এর রোধকের দ্বারা ক্লোবাজামের সক্রিয় মেটাবলাইট এন-ডেস্মিথাইলের উন্মক্ততা বৃদ্ধি পায়। যখন শক্তিশালী CYP2C19 এর বাধাদানকারী ঔষধ (যেমনঃ কানাবিডিওলযুক্ত ঔষধ, ফ্লুকোনাজল, ফ্লুভক্সামিন, টাইক্লপিডিন) অথবা মধ্যম শক্তিশালী CYP2C19 এর বাধাদানকারী ঔষধ (যেমনঃ অমিপ্রাজল) ক্লোবাজাম এর সাথে ব্যবহার করা হয় তখন ক্লোবাজাম এর মাত্রা সমন্বয় করা দরকার হতে পারে।

CYP2D6 সাবস্ট্রেট: ক্লোবাজাম একটি দুর্বল প্রকৃতির CYP2D6 এনজাইম রোধকারী ঔষধ। যেসব ঔষধের বিপাক কার্য (যেমনঃ ডেক্সট্রোমিথোরফেন, পিমোযাইড, পারক্সেটিন, নেবিভোলল) CYP2D6 এর দ্বারা সম্পন্ন হয় তাদের মাত্রা সমন্বয় সাধন দরকার হতে পারে।

প্রতিনির্দেশনা

ক্লোবাজাম ব্যবহার করা যাবে না-

  • রোগী ক্লোবাজাম অথবা এর অন্য কোন উপাদানের উপর প্রতি অতিসংবেদনশীল হলে।
  • রোগীর মাইস্থেনিয়া গ্রেভিস থাকলে (পেশী দুর্বলতার ঝুঁকি)
  • রোগীর শ্বসনতন্ত্রের মারাত্মক সমস্যা থাকলে
  • রোগীর নিদ্রাহীনতার সমস্যা থাকলে (অবক্ষয়ের ঝুঁকি)
  • রোগীর যকৃতে গুরুতর সমস্যা থাকলে (প্রেসিপেটিট এনসেফালোপ্যাথির ঝুঁকি থাকে)
  • স্তন্যদানকারী মায়েদের বেনজোডায়াজাপিন ব্যবহারের যথাযথ প্রয়োজনীয়তা বিবেচনা না করে শিশুদের এটি দেওয়া যাবে না।
  • ৩ মাস থেকে ৬ বছরের বাচ্চাদের ক্ষেত্রে ক্লোবাজাম ব্যবহার নিষিদ্ধ, যদি না বিশেষ ক্ষেত্রে এন্টিকনভালসেন্ট হিসেবে এর ব্যবহার অপরিহার্য হিসেবে বিবেচিত হয়।

পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া

বিপাক এবং পুষ্টি সম্বন্ধীয়ও: সাধারণঃ ক্ষুধা কমে যাওয়া।

মানসিক বৈকল্যতা: সাধারণঃ বিরক্ত, ক্রোধ, অস্থিরতা,বিষন্নতা( প্রাক-বিদ্যমান বিষন্নতা উন্মোচিত হতে পারে), ঔষধের সহনশীলতা (ঔষধের উচ্চমাত্রা ব্যবহারে অথবা দীর্ঘ দিন ব্যবহারে এই ধরনের বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা যায়) অধীরতা।

স্নায়ুতন্ত্রের বৈকল্যতা: খুব সাধারণঃ নিদ্রালুতা, বিশেষত চিকিৎসা শুরুতে যখন উচ্চতর মাত্রায় ব্যবহার করা হয়। সাধারণঃ অনুত্তেজিত, মাথা ঘোরা, মনোযোগ মধ্যে ঝামেলা,ধীর অথবা অস্পষ্ট কথা/ডিসার্থ্রিয়া/বক্তৃতা
ব্যাধি (বিশেষ করে উচ্চ মাত্রায় বা দীর্ঘমেয়াদী চিকিসার জন্য এই ধরনের বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা যায় এবং তা প্রতিবর্তনযোগ্য), মাথাব্যথা, কম্পন, অসমক্রিয়া।

(ads2)


চোখে রোগ: বিরলঃ ডবল ভিশন (বিশেষ করে উচ্চ মাত্রায় বা দীর্ঘমেয়াদী চিকিৎসার জন্য এই ধরনের বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা যায় এবং তা প্রতিবর্তনযোগ্য)।

শ্বাস-প্রশ্বাসে, বক্ষ এবং মেডিয়াস্টিনালের রোগ: অজানাঃ শ্বাসযন্ত্রের বিষন্নতা, শ্বাসযন্ত্রের অকার্যকারিতা।

পরিপাকতন্ত্রে গোলযোগ: সাধারনঃ মুখ শুকিয়ে যাওয়া, কোষ্ঠকাঠিন্য, বমি বমি ভাব।

চামড়া ও সাবকিউটেনাস টিস্যুর সমস্যা: বিরলঃ ফুসকুড়ি, অজানাঃ আলোক বিক্রিয়া ফলে ছুলি, স্টিভেন-জনসন সিন্ড্রোম, মারাত্মক ফলাফল সহ টক্সিক এপিডারমাল, নেক্রোলাইসিস কিছু ক্ষেত্রে জীবননাশক ও হতে পারে।

মাস্কুলোস্কেলেটাল এবং যোজক কলা রোগ: অজানাঃ পেশী সংকুচিত হওয়া, পেশীর দূর্বলতা।

সাধারণ রোগ ও প্রয়োগের শর্ত: খুব সাধারণঃ ক্লান্তি, বিশেষ করে চিকিৎসার শুরুতে যখন উচ্চতর মাত্রায় ব্যবহার করা হয়। অজানাঃ উদ্দীপনায় ধীর প্রতিক্রিয়া, হাইপোথারমিয়া। 

অনুসন্ধান: অজানাঃ ওজন বেড়ে যায়, (বিশেষ করে উচ্চ মাত্রা সহ বা দীর্ঘমেয়াদী চিকিৎসায়)।

গর্ভাবস্থায় ও স্তন্যদানকালে

গর্ভাবস্থায়: সতর্কতা স্বরূপ গর্ভাবস্থায় ক্লোবাজাম গ্রহন থেকে বিরত থাকাই শ্রেয়। গর্ভাবস্থায় ক্লোবাজাম তখনই গ্রহন করা যাবে যদি এর ব্যবহার যথাযোগ্য বলে বিবেচিত হয়। পশু গবেষণা প্রজনন বিষাক্ততা প্রদর্শন করেছে। ক্লোবজাম প্লাসেন্টাকে অতিক্রম করে। বিপণন পরবর্তী সুরক্ষা ডাটাবেস অনুযায়ী, গর্ভাবস্থায় চলাকালীন ক্লোবাজামের ব্যবহারে সীমিত তথ্য উপলব্ধ আছে। কোহর্ট স্টাডিজ থেকে সংগৃহীত বিপুল সংখ্যক তথ্য অনুযায়ী গর্ভাবস্থার প্রথম ত্রৈমাসিকের সময় বেনজোডিয়াজিপাইনের প্রভাবের পরে বিকৃতির ঘটনার প্রমাণ প্রদর্শন করেনি। তথাপি, কিছু এপিডেমিওলোজিকাল কেস-কন্ট্রোল স্টাডি অনুযায়ী, বেনজোডিয়াজিপাইনের সাথে ক্লেফট লিপ ও প্যালেটের ঘটনা বৃদ্ধি পেতে দেখা গেছে। গর্ভাবস্থায় দ্বিতীয় এবং/অথবা তৃতীয় ত্রৈমাসিকের সময় বেনজোডিয়াজিপাইন প্রয়োগের পরে ভ্রূনের নড়াচড়া কমে যাওয়া এবং ভ্রূনের হার্ট রেট পরিবর্তন হতে দেখা গিয়েছে। শিশুর জন্মের সময় অথবার জন্মের আগে ক্লোবাজাম প্রয়োগ করলে শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা দেখা দিতে পারে (শ্বসনতন্ত্রের যন্ত্রণা এবং নিদ্রাকালীন সময়ে শ্বাস নিতে না পারা), যা অন্যান্য উপসর্গ যেমন ঝিমানিভাব, দেহে নিম্ন তাপমাত্রা, পেশীতে সমস্যা, শ্বসতন্ত্রের সমস্যা ও নবজাতকের খাবার খাওয়ানো কঠিন (ফলশ্রুতিতে ওজন না বাড়তে পারে) হয়ে যেতে পরে (ফ্লপি-ইনফেন্ট সিন্ড্রোম এর লক্ষণ)। কোন মা যদি গর্ভধারনের শেষের সময়গুলো সহ দীর্ঘদিন বেনজোডায়াজাপিন ব্যবহার করে থাকে তাহলে তার নবজাতক শিশুর মধ্যে ক্লোবাজাম এর ওপর নির্ভরতা তৈরি হতে পারে এবং জন্মের পরবর্তী সময়ে ঔষধ প্রত্যাহারের উপসর্গসমুহ দেখা দিতে পারে। এক্ষেত্রে জন্মের পরবর্তী সময়ে সময়ে নবজাতকের পর্যাপ্ত পর্যবেক্ষণ করতে হবে। সম্ভাব্য গর্ভাবস্থায় মহিলাদের ক্ষেত্রে ক্লোবাজাম ব্যবহারের সুবিধা ও ঝুঁকি অবহিত করা উচিত। যদি কোন মহিলার গর্ভধারণের পরিকল্পনা করে বা গর্ভবতী হয় তবে ঝুকিঁ ও সুবিধা সাবধানে মূল্যায়ন করে ক্লোবাজাম এর সাথে চিকিৎসা বন্ধ করা উচিত কিনা সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত। ক্লোবাজাম দ্বারা চিকিৎসা চলতে থাকলে, সর্বনিম্ন কার্যকর মাত্রার ক্লোবাজাম ব্যবহার করা উচিত।

স্তন্যদান: স্তন্যদানকারী মায়েদের ক্লোবাজাম ব্যবহার নিষেধ কারন ক্লোবাজাম মাতৃদুগ্ধ দ্বারা নিঃসৃত হয়।

সতর্কতা

চর্মে তীব্র প্রতিক্রিয়া: বাজারজাত পরবর্তী অভিজ্ঞতা থেকে দেখা যায় যে, শিশু এবং প্রাপ্তবয়স্ক উভয়ের ক্ষেত্রেই ক্লোবাজাম ব্যবহারে স্টিভেন-জনসন সিন্ড্রোম এবং টক্সিক এপিডারমাল নেক্রোলাইসিস সহ চর্মে মারাত্মক প্রতিক্রিয়া দেখা যেতে পারে। বেশীর ভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় মৃগী রোগ বিরোধী ঔষধ সহ অন্য ঔষধের সাথে সহগামী চিকিৎসা করা হয় বলে চর্মে এধরনের মারাত্মক প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। স্টিভেন-জনসন সিন্ড্রোম এবং টক্সিক এপিডারমাল নেক্রোলাইসিস এর ফলাফল মারাত্মক হতে পারে। চিকিৎসা শুরুর প্রথম ৮ সপ্তাহে স্টিভেন-জনসন সিন্ড্রোম এবং টক্সিক এপিডারমাল নেক্রোলাইসিস এর কোন লক্ষণ পরিলক্ষিত হয় কিনা তা খুব ভালভাবে পর্যবেক্ষণ করতে হবে। স্টিভেন-জনসন সিন্ড্রোম এবং টক্সিক এপিডারমাল নেক্রোলাইসিস এর উপস্থিতি সন্দেহ হলে ক্লোবাজাম দ্রুত বন্ধ করতে হবে। যদি উপসর্গ দ্বারা স্টিভেন-জনসন সিন্ড্রোম এবং টক্সিক এপিডারমাল নেক্রোলাইসিস এর উপস্থিতি প্রকাশ পায় তাহলে ক্লোবাজাম ব্যবহার পুনরায় শুরু করা যাবে না এবং এক্ষেত্রে অন্য কোন চিকিৎসা দিতে হবে।

শ্বাস-প্রশ্বাসের অপ্রতুলতা: ক্লোবাজাম শ্বাসকার্যের দমন সৃষ্টি করতে পারে, বিশেষত যদি উচ্চ মাত্রায় প্রদান করা হয়। তাই যেসকল রোগীদের দীর্ঘস্থায়ী বা তীব্র শ্বসনতন্ত্রের সমস্যা রয়েছে তাদের ক্ষেত্রে শ্বাসযন্ত্রের কার্যকারিতা পর্যবেক্ষণ করতে হবে এবং প্রয়োজন অনুযায়ী ঔষধের মাত্রা কমাতে হবে। শ্বসনতন্ত্রের মারাত্মক সমস্যায় আক্রান্ত রোগীদের ক্ষেত্রে ক্লোবাজাম ব্যবহার নিষিদ্ধ।

পেশী দুর্বলতা: ক্লোবাজাম ব্যবহারে পেশী দুর্বলতা দেখা দেয়। অতএব, প্রাক-বিদ্যামান পেশী দুর্বলতা বা মেরুদন্ড অথবা লঘুমস্তিস্কে আটাক্সিয়া রোগীদের বিশেষ পর্যবেক্ষণ প্রয়োজন এবং এক্ষেত্রে ডোজ কমানেরা প্রয়োজন হতে পারে। যে সব রোগীদের মায়েস্থেনিয়া গ্রেভিস আছে তাদের ক্ষেত্রে ক্লোবাজাম ব্যবহার নিষেধ।

কিডনি এবং যকৃতের সমস্যা: কিডনি এবং যকৃতের সমস্যায় রোগীদের ক্লোবাজাম এর প্রতি সংবেদনশীলতা এবং বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায় এবং ঔষধের মাত্রা হ্রাস করা জরুরী। দীর্ঘদিন চিকিৎসার ক্ষেত্রে কিডনি এবং যকৃতের কার্যক্রম নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করতে হবে।

বয়স্ক রোগীদের ক্ষেত্রে: বয়স্ক রোগীদের ক্ষেত্রে বিরূপ প্রতিক্রিয়া যেমন- তন্দ্রা, ঝিমুনিভাব, পেশীর দুর্বলতা, পড়ে যাওয়ার ঝুঁকি বৃদ্ধি পায় যাতে কিনা রোগী মারাত্মক আঘাত পেতে পারে।এই কারনে ঔষধের মাত্রা কমানোর জন্য পরামর্শ প্রদান করা হয়ে থাকে।

মৃগীর ক্ষেত্রে সহনশীলতা: বেনজোডায়াজাপিন দ্বারা মৃগী রোগের চিকিৎসা চালানোর ক্ষেত্রে এন্টিকনভালসেন্টের কার্যকারিতা হ্রাসের সম্ভবনা বিবেচনায় আনতে হবে।

CYP2C19 poor মেটাবলাইজার: CYP2C19 poor মেটাবলাইজার রোগীদের সক্রিয় মেটাবলাইট এন-ডেস্মিথাইল ক্লোবাজাম, এক্সটেন্সিভ মেটাবলাইজারের তুলনাই বেশী হবে বলে আশা করা হয়। এক্ষেত্রে ক্লোবাজাম এর মাত্রার সমন্বয় সাধন করা দরকার হতে পারে। (উদাহরণঃ অল্প প্রারম্ভিক মাত্রা থেকে শুরু করে ধীরে ধীরে মাত্রা বৃদ্ধি করা হয়।)

(ads1)

আত্মহত্যার প্রবনতা: বেশ কিছু এপিডেমিওলজিকাল গবেষণায় দেখা গেছে যে, বেঞ্জোডায়াজেপাইন ও হিপ্নোটিক দ্বারা চিকিৎসায় বিষন্নতাবিহীন রোগীদের মধ্যে আত্মহত্যা ও আত্মহত্যার প্রচেষ্টা বেড়েছে। এই গবেষণায় ক্লোবজামের সংক্রান্ত খুব সীমিত তথ্য পাওয়া গেছে। বিপণন পরবর্তী নজরদারিতে ক্লোবাজামের সাথে আত্মঘাতী আচরণের ঘটনা দেখা গেছে। এই সকল ক্ষেত্রে মিশ্র কারন উপস্থিত ছিল।

CYP2C19 ইনহিবিটরের ব্যবহার: CYP2C19 ইনহিবিটরস সহ ক্লোবাজাম, যার মধ্যে কানাবিডিওলযুক্ত ঔষধ, খাদ্যতালিকাগত পরিপূরক এবং বিনোদনমূলক পণ্যসমুহ একসাথে ব্যবহারের ফলে কানাবিডিওল এন-ডেসেমে থাইলক্লোবাজাম (এনসিএলবি) এর এক্সপোজার বাড়তে পারে। এ জাতীয় বৃদ্ধির ফলে নিদ্রালুতা ও অবসন্নতার মতো বিরূপ প্রভাব বৃদ্ধি পায়। যখন CYP2C19 ইনহিবিটর জাতীয় ঔষধের সাথে ব্যবহার করা হয়, তখন ক্লোবাজামের মাত্রা সমন্বয় প্রয়োজন হতে পারে। খাদ্যতালিকাগত পরিপূরক এবং বিনোদনমূলক পণ্যসমূহ ক্লোবাজামের সাথে একত্রে গ্রহণ করা উচিত নয় কারণ এগুলিতে অজানা মাত্রায় এবং পরিবর্তনশীল মানের কানাবিডিওল রয়েছে।

থেরাপিউটিক ক্লাস

Benzodiazepine hypnotics

সংরক্ষণ

মেয়াদ উত্তীর্ণের পর ব্যবহার করবেন না। ৩০° অথবা এর নিচে আলো থেকে দূরে রাখুন। শিশুদের নাগালের বাইরে রাখুন।

প্রশ্ন ও মতামত জানাতে পারেন আমাদের কে ইমেল : info@banglanewsexpress.com

আমরা আছি নিচের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলোতে ও

Post a Comment

Previous Post Next Post

POST ADS1

POST ADS 2